সন্ত পিটার আর তিন চোর

83

সন্ত পিটার দেখলেন স্বর্গ মানুষে মানুষে ভর্তি হয়ে যাচ্ছে। “পৃথিবীতে ভালো মানুষের প্রাদুর্ভাব ঘটেছে নাকি!!”,

মনে মনে ভাবলেন তিনি। তো স্বর্গে জনবিস্ফোরন রোধ করার জন্য তিনি তাৎক্ষণিক একটা ব্যবস্থা নিলেন। ভাবলেন, স্বর্গের দুয়ারে যেই আসবে তাকে বাইবেল থেকে প্রশ্ন করা হবে। যদি পারে, তাহলে তাকে স্বর্গে ঢুকতে দেয়া হবে। আর যদি না পারে তবে ঠ্যাঙিয়ে নরকের রাস্তা মাপতে পাঠানো হবে।

তিনজন লোককে ইত্যবসরে দেখা গেল স্বর্গের দুয়ারে দণ্ডায়মান। পৃথিবীতে তারা দল বেঁধে চুরি করে বেড়াতো আর ছিল পারস্পরিক সমকামী বন্ধু। একসাথে ধরা পড়ায় তিনজনকেই ফাঁসিতে চড়িয়ে পরপারে পাঠানো হয়েছে। সম্পূর্ণ নৈরাশ্য নিয়ে তারা সন্ত পিটারের সামনে দাঁড়ালো। সন্ত পিটার তাঁদের দলনেতাকে জিজ্ঞেস করলেন, “জীবদ্দশায় বাইবেল পড়েছ?

“আজ্ঞে, পড়েছি। শুধু তাইনা, অন্যের বাসা থেকেও একাধিক বাইবেল সংগ্রহ করেছি।”, চটপটে জবাব দিল সে।

“হুম, বলোতো দেখি, কজন মহৎ ব্যক্তির কথা সেখানে বলা হয়েছে।”

দলনেতার ভুরু কুঁচকে উঠলো। সে হাঁ করে তাকিয়ে থাকা বাকি বন্ধুদেরকে একবার দেখে নিল। এবার সন্ত পিটারের দিকে তাকিয়ে সে বলল, “তিনজন?”

‘হুম’, বললেন পিটার। “পবিত্র ত্রিত্বকে (holy trinity) ভালই স্মরণ রেখেছো। যাও, এই পথ ধরে সোজা স্বর্গে চলে যাও”

প্রথমজন ছাড়পত্র পাওয়াতে বাকিরা একটু উদ্বিগ্ন হয়ে পড়লো নিজেদের ব্যাপারে। সন্ত পিটার এবার দ্বিতীয়জনকে জিজ্ঞেস করলেন। “মোসেজতো বিশাল ক্ষমতাবান ছিলেন। তাইনা?”

“জ্বী”, হাসিমুখে উত্তর করলো দ্বিতীয়জন, কারণ একটু আগে স্বর্গের পাশ পাওয়া তাদের দলনেতার নাম মোসেজ আব্রাহাম।

“আমার প্রশ্ন হচ্ছে, মোসেজের কী সবচেয়ে শক্তিশালী ছিল?”

হতচকিয়ে গেল দ্বিতীয়জন। সে তার স্বর্গত সঙ্গীটিকে একবার আখাম্বা কল্পনা করে নিল। অনেক ভেবেচিন্তে খানিক বাদে মিনমিনিয়ে উত্তর দিল, “তার দণ্ডটা”

“বেশ, বেশ। নইলে কী আর উত্তাল লোহিত সাগর দুটুকরো হয়। যাও, এই রাস্তা ধরে সোজা স্বর্গে চলে যাও”, বললেন সেণ্ট পিটার।

এবার শেষজনের পালা। পিটার দেখলেন খুব সহজেই প্রথম দুজন উত্তর করে দিয়েছে। তাই বাইবেল থেকে জিজ্ঞেস করে এদের আটকানো যাবেনা। এবার পিটার কিছুক্ষণ চিন্তা করে বললেন, “বলতো বৎস, ইভ আর আদমের যখন প্রথম দেখা হয়, তখন ইভ আদমকে কী বলেছিলেন?”

তৃতীয়জন এ প্রশ্ন শুনে যেন আকাশ থেকে পড়ল। সে কিছুক্ষণ মাথা চুলকোলো, কিছুক্ষণ থুতনি রগড়ালো কিন্তু কিছুতেই কিছু কিনারা করতে পারছিলনা। শেষমেশ আমসি মুখে সে পিটারের দিকে তাকিয়ে বললো, “এটাতো বেশ শক্ত!!”

চারপাশে তূর্যধ্বনি হল। সন্ত পিটার বিহ্বল হয়ে বললেন, “চমৎকার!!যাও বৎস, স্বর্গের দরজা তোমার জন্য খোলা…”

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here